১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ |

দাগনভূইয়া আলহাজ্ব সফি উল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের

প্রতিষ্ঠার ১৫ বছরেও উন্নয়নের কোন ছোঁয়া লাগেনি

এ কে আজাদ:
ফেনীর দাগনভূইয়া উপজেলার এতিহ্যবাহী আলহাজ্ব সফি উল্লা উচ্চ বিদ্যালয়টি বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে। প্রতিষ্ঠার ১৫ বছরেও উন্নয়নের কোন ছোঁয়া লাগেনি। প্রয়োজনীয় অবকাঠামোর অভাবে জরাজীর্ণ টিনশেড ভবনে ঝুঁকি নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা নিয়মিত ক্লাস করছে। দাগনভূইয়া উপজেলা পরিষদ থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার দক্ষিণে পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড জগতপুর গ্রামের মনোরম পরিবেশে অবস্থিত বিদ্যালয়টি। তারপাশে অবস্থিত উপজেলার ওয়াজেরিয়া সরকারি প্রাথমকি বিদ্যালয়। একসময়ে অত্র এলাকায় শিক্ষা ও সভ্যতা বিকাশের একমাত্র মাধ্যম ছিল হাতেগোনা ২ থেকে ১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সারাদেশে যখন শিক্ষা সভ্যতার বিকাশ দ্রুত বইতে শুরু করে ঠিক তখনই এলাকার আশেপাশে কোন উচ্চ বিদ্যালয় না থাকায়, উপজেলার একমাত্র ইকবাল মেমোরিয়া ডিগ্রী কলেজ ও অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠাকারী শিক্ষানুরাগী আবদুল আউয়াল মিন্টুর আন্তরিক প্রচেষ্টায় ২০০৩ সালে প্রায় ৩২ শতাংশ জমির ওপর শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেন। এরপর থেকে শুরু হয় বিদ্যালয়টির খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে পথ চলা। বিদ্যালয়টিতে বর্তমান শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২ শতাধিক জন। শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ কর্মরত কর্মচারীর সংখ্যা ১৩ জন। বিদ্যালয়টি প্রতিবছরই অনুষ্ঠিত পরীক্ষার ফলাফলে বেশ সুনাম কুড়িয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘদিনের পুরনো উপজেলার পৌর এলাকায় আলহাজ্ব সফি উল্লা উচ্চ বিদ্যালয়টির অবস্থা বেহাল দশা। পুরাতন টিনশেডের ও টিনের বেড়া নির্মিত ৭ কক্ষ বিশিষ্ট ভবনগুলো জরাজীর্ণ অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছে। প্রতিটি কক্ষে গাদাগাদি করে ছাত্র-ছাত্রীরা শিক্ষাগ্রহণ করছে। বর্তমানে একটি শ্রেণি কক্ষ বন্ধ করে অফিস রুমের কার্যক্ষম চলছে। এইজন্য ৬ষ্ঠ/৭ম শ্রেণির ক্লাস নিতে কষ্ট হচ্ছে বলে প্রধান শিক্ষক জাকারীয়া ভূঞা জানান। শ্রেণীকক্ষে দরজা-জানালা থাকলেও তা ভাঙা। চেয়ার-টেবিলসহ বসার বেঞ্চ নষ্ট হয়ে গেছে। শিক্ষা উপকরণ, পাঠাগার ও খেলাধুলার সরঞ্জামের তীব্র সংকট রয়েছে। অনেক ভবনের মেঝেতে কাঁচা, স্যাঁতস্যাঁতে। বিদ্যালয়টিতে একটি মাত্র টয়লেট থাকলেও তা প্রায় ব্যবহারের অনুপযোগী। ফলে এ ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বিড়ম্বনার শেষ নেই। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাতার অনুদানে মাঝে মধ্যে কিছুটা উন্নয়ন করা হলেও তারপরও দীর্ঘদিন যাবত বিদ্যালয়টি সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেই।

ঘুরে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের শিক্ষার কোন পরিবেশ নেই। বিদ্যালয়টি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শিক্ষাবিদ তাবিদ আউয়াল বলেন, শিক্ষক মন্ডলীর জন্য বসার কক্ষও নেই। ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদানের জন্য ২টি টিনশেড ঘর রয়েছে। ঘর ২টি প্রতিষ্ঠাতার আর্থিক সহায়তায় করা হয়েছিল, যা বর্তমানে জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমার পিতা আবদুল আউয়াল মিন্টু তার একক প্রচেষ্টায় এলাকাবাসীর কথা চিন্তা করে এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। আমরা চাই সরকার ও স্থানীয় এলাকাবাসী শিক্ষার কার্যক্রমকে দ্রুত প্রসার করতে তাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিক। বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক জাকারীয়া ভূঞা বলেন, আমার বিদ্যালয়টির দিকে একটু নজর দিন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে দীর্ঘ ১৫ বছর অতিবাহিত হলেও পুরনো এই বিদ্যালয়ে উন্নয়নে কোনো সরকারি অনুদান পাওয়া যায়নি। দেশনেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের হাতের ছোঁয়া প্রায় দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেগেছে। আমরা শিক্ষকরা চাই প্রধামন্ত্রী উন্নয়নের ছোঁয়া যেন আমাদের প্রতিষ্ঠানে লাগে। বর্তমানে বিদ্যালয়টি পাঠদানের প্রায় অযোগ্য হয়ে পড়েছে। বর্ষা মৌসুমে এই টিনের চালা দিয়ে পানি চুয়ে চুয়ে পড়ে। তারপরও শিক্ষকগণ অতিকষ্টে অধ্যায়নরত ২শ’ জন ছাত্র-ছাত্রীদের অক্লান্ত পরিশ্রম করে পাঠদান করে যাচ্ছেন। এ স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ থেকে প্রতিবছর ছাত্র-ছাত্রীরা ভালো ফলাফল করে আসছে। এসএসসিতেও ভালো রেজাল্ট করছে শিক্ষার্থীরা। কিন্তু অবকাঠামোগত সমস্যা সমাধান করা না হলে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। শ্রেণীকক্ষ সংকটের কারণে ছাত্র-ছাত্রীরা ঝুঁকি নিয়েই জরাজীর্ণ এই ভবনে ক্লাস করছে। আক্ষেপ করে তিনি আরো বলেন, উপজেলার দীর্ঘদিনের পুরাতন এই বিদ্যালয়টির উন্নয়নে সরকারের কোন দৃষ্টি নেই। তিনি এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

(Visited ১৬০ times, ১ visits today)

আরও পড়ুন

হযরত খাজাবাবা (রঃ) ও জামে আওলিয়া কেরামের পথ পূণরুদ্ধার সম্মেলন অনুষ্ঠিত
বীর মুক্তিযুদ্ধা আব্দুল আলিম এর সহধর্মীনি নুরজাহান বেগম আর নেই
ফজলে রাব্বীর আসনে নৌকার হাল ধরতে চান যারা
মহান জাতীয় শহীদ দিবস শাহাদাতে কারবালা দিবসে ফেনীতে র‍্যালী
মুসলিম মিল্লাতের মহান জাতীয় শহীদ দিবস উপলক্ষে ওয়ার্ল্ড সুন্নী মুভমেন্টের সমাবেশ
মহররম ঈমানী শোক ও ঈমানী শপথের মাস, আনন্দ উদযাপনের নয় – আল্লামা ইমাম হায়াত
এমপির বিরুদ্ধে উপজেলা চেয়ারম্যানকে কিল-ঘুষির অভিযোগ
বঙ্গবন্ধুর সমাধীস্থলে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের শ্রদ্ধাঞ্জলী