১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

সৃষ্টির জন্য মহামহিম রেসালাতে এলাহী ছাড়া আল্লাহতাআলার কোন আলো নেই ও কোন সংযোগ নেই – আল্লামা ইমাম হায়াত

মতামত:

 

দয়াময় আল্লাহতাআলাকে বুঝতে হলে ঈমান বুঝতে হলে ইসলাম বুঝতে হলে জীবন তথা নিজেকে বুঝতে হলে রেসালাতে ইলাহী ও জীবনের উৎস প্রাণাধিক প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে চিনতে হবে।

হাকিকতে রেসালাত তথা প্রিয়নবীকে যারা ঈমানসম্মত ভাবে চিনতে পারেনি বুঝতে পারেনি তারা কখনও আল্লাহতাআলাকে চিনবে না, ঈমান-দ্বীন-জীবন কিছুই বুঝবে না ফলে সব বিষয়ে আঁধারে থেকে বিপরীত বিকৃত পথে থাকবে।

সৃষ্টির জন্য রেসালাত ছাড়া আল্লাহতাআলার কোন আলো নেই ও রেসালাত ছাড়া আল্লাহতাআলার কোন সংযোগ নেই; ফলে যারা রেসালাত চিনবেনা ও রেসালাতের আপন তথা শানে রেসালাতের আপনত্ব ও প্রেমের উৎসর্গীকৃত ধারায় সংযুক্ত হবেনা তারা আঁধার মিথ্যায় থাকবে, দয়াময় আল্লাহতাআলা থেকে বিচ্ছিন্ন থাকবে এবং তাদের ঈমান ইসলাম বুঝার ও ইসলামের পথ পদ্ধতি প্রক্রিয়া বুঝার প্রশ্নই আসেনা।

প্রাণাধিক প্রিয়নবীকে এবং প্রিয়নবীর নূরের ধারা প্রিয়নবীর আপনত্বের ধারা প্রাণপ্রিয় মহামহিম আহলে বায়েত, মহামান্য খোলাফায়ে রাশেদীন, মকবুল সাহাবায়ে কেরাম, সত্যের ইমামবৃন্দ ও জামিয়ে আওলিয়া কেরামকে চিনেনি বলেই তথা আলো-সত্য ও জ্ঞানের ধারা চিনেনি বলেই ইসলামের নামে সব বাতিল ফেরকা তৈরি হয়েছে।

ইসলাম যান্ত্রিক আইন কানুন নয়, ইসলাম আলোকময় জীবন্ত বিষয়। ঈমানের পবিত্র কলেমার যে আলোকময় জীবনশক্তিই ইসলামের প্রাণ প্রবাহ ও ইসলামের আসল বিষয় যার অপর নাম সত্য প্রবাহ। এ সত্য প্রবাহের জন্য জ্ঞানময় মুক্ত পরিবেশ অপরিহার্য্য। ইসলামের মূল লক্ষ্য এ সত্য প্রবাহ তথা ঈমান যার লক্ষ্য এ সত্য প্রবাহ তথা আল্লাহতাআলার নৈকট্য সাধনা এবং এ নৈকট্য সাধনার পূর্বশর্ত তাঁর সংযোগ কেন্দ্র তাঁর মহান রেসালাতের প্রেম, আপনত্ব ও নৈকট্য সাধনা।

দুনিয়ায় সব মানুষকে আল্লাহতাআলার হওয়ার জন্য ও নিজেকে পাওয়ার জন্য অবশ্যই শানে রেসালাত চিনতে ও যুক্ত হতে হবে। শানে রেসালাত চিনতে পারাই সত্য উপলব্ধি তথা ঈমান লাভ করা, যে ঈমান তাকে আল্লাহতাআলার পবিত্র নামের সাথে যুক্ত করে দেবে; না হয় দয়াময় আল্লাহাতাআলাকে হারিয়ে ফেলবে এবং আল্লাহতাআলা থেকে চির বিচ্ছিন্ন হয়ে মিথ্যার অংশ হয়ে ধ্বংস হয়ে যাবে।

ইসলাম বুঝার মৌলিক পূর্বশর্ত রেসালাতে ইলাহী মহান প্রিয়নবীকে ছাড়া যে আল্লাহতাআলার সম্পর্কই হয় না, মহান প্রিয়নবী যে জীবনের সবচেয়ে আপন পরম আপন, প্রাণাধিক প্রিয়নবী যে কেবলই দয়া কেবলই রহমত কেবলই ভালবাসা কেবলই উদ্ধারকারী মুক্তিদাতা পরম আশ্রয়, প্রিয়নবীই যে আল্লাহতাআলার সর্বোচ্চ রহমত ও আল্লাহতাআলার সকল রহমতের বহিঃপ্রকাশ তা অবশ্যই বুঝতে হবে।

সত্য উপলদ্ধি, ভালবাসা ও রহমতের ধারাতেই দ্বীন এগিয়ে যাবে, যেখানে রহমত নিরাপত্তা ভালবাসা কল্যাণ সাধনা নেই সেখানে দয়াময় আল্লাহতাআলা ও তাঁর মহান হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নেই, বাহ্যিক সবকিছু থাকলেও সেটা ইসলাম নয়। ইসলামের মূল বিষয় তাওহীদ-রেসালাত ও জীবনের সত্য উপলদ্ধি এবং পবিত্র কলেমার ভিত্তিতে আত্মার গঠন এবং মূলের সাথে আত্মার সংযোগ, অন্যান্য বিষয় সত্য উপলব্ধির পরের বিষয়।

সত্য উপলব্ধি না হলে সত্যের কেন্দ্রে সংযুক্ত হতে না পারলে অন্যান্য বিষয় প্রাণহীন অসার। সত্যের বিপরীতে গিয়ে অন্য কোন বিষয় আত্মা ও জীবনের মুক্তি আনতে পারবে না। রাষ্ট্রব্যবস্থা ও বিশ্বব্যবস্থা জীবনের জন্য জীবনেরই অংশ, আর জীবনের মূল আলো দয়াময় আল্লাহতাআলার আলো তাঁর মহান রেসালাত সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

দ্বীন ও জীবনের সব দিক জীবনের রাষ্ট্রব্যবস্থা ও বিশ্বব্যবস্থা সবই দ্বীনে হকের আলো ও দিশায় চলবে সত্য উপলব্ধি মুক্ত ধারায়, সংখ্যা বা রাষ্ট্র ক্ষমতার বলে জবরদস্তি দ্বীনের নাম চাপিয়ে দিলে সত্য উপলব্ধির মুক্ত ধারা নস্যাৎ হয়ে প্রকৃত দ্বীন বিকৃত হয়ে দ্বীনের নামে দ্বীন ও জীবন ধ্বংসাত্মক বিকৃতি কায়েম হয়, দ্বীন নয়।

সত্যের বিপরীতে, পবিত্র কলেমার বিপরীতে, মহান শানে রেসালাতের বিপরীতে, প্রাণপ্রিয় মহামহিম আহলে বায়েত মহামান্য খোলাফায়ে রাশেদীনের বিপরীতে, কোরআনুল করীমের মূল মর্মের বিপরীতে ভয়ংকর অপব্যাখ্যা করে ইসলামী রাষ্ট্র-ইসলামী হুকুমত-কোরআনী আইন ইত্যাদি বলে বলেই স্বয়ং খোলাফায়ে রাশেদীনকে হত্যা করা হয়েছে।

যাঁরা ইসলামের মূল, মহামহিম পবিত্র আহলে বায়েতকে হত্যা করা হয়েছে প্রকৃত ইসলাম নির্মূল করার জন্য, এসব শব্দের আড়ালে যুগে যুগে আমাদের অনেক মহান ইমাম ও আওলিয়া কেরাম ও মুমিন মুজাহিদগণকে এবং মুসলিম ও অমুসলিম অসংখ্য নিরাপরাধ মানুষকে ক্রমাগত হত্যা করা হচ্ছে।

বাতেল জালেম অপশক্তির হাতে রাষ্ট্রক্ষমতা গেলে ওরা এভাবেই একদিকে দ্বীন বিকৃত করে অপরদিকে মানুষকে খুন জুলুম করে তাদের স্বৈর ফেরাউনী টিকিয়ে রাখে। ধর্মরাষ্ট্র বা রাষ্ট্রধর্মের আড়ালে এবং জাতীয়তা-ভাষা-গোত্র ইত্যাদি নামে সকল প্রকার গোষ্ঠীবাদি রাজনীতি-রাজনৈতিক দল-রাষ্ট্র ও বিশ্বকাঠামো সবই প্রকৃত ধর্ম তথা সত্য ও জ্ঞানের মুক্ত প্রবাহ জীবন-মানবতা-স্বাধীনতার শত্রু। একক গোষ্ঠিবাদী রাষ্ট্র যে নামের আড়ালেই হোক মিথ্যা জুলুম কায়েম রাখার সর্বজঘন্য অস্ত্র।

একমাত্র ইনসানিয়াত রাষ্ট্র ও বিশ্বকাঠামোই সত্য ও জ্ঞানের প্রবাহের রূদ্ধতা খুলে দিয়ে মানুষকে বস্তুবাদী সত্তা থেকে মুক্ত করে মানবসত্তায় উন্নীত করে, সকল বাতেল জালেম অপশক্তির কবলমুক্ত জীবন ও দুনিয়া গড়তে পারে। সর্বজনীন মানবতার রাষ্ট্রব্যবস্থা ও মুক্ত মানবতার অখন্ড বিশ্বব্যবস্থা খেলাফতে ইনসানিয়াত (Authority of life & state & world of humanity) এর মাধ্যমে সকল প্রকার একক গোষ্ঠিবাদী রাষ্ট্রব্যবস্থা ও মানবতা বিরোধী বিশ্বকাঠামো পরিবর্তন করে বাতেল জালেম অপশক্তির অন্যায় কর্তৃত্ত্ব আধিপত্য থেকে সত্য ও জীবনের মুক্তি আনতে হবে।

বস্তুর উর্ধ্বে মানবসত্তা বুঝতে না পারলে সে কখনও জীবনের সত্য বুঝতে পারবে না। জীবনের সত্য উপলব্ধি জীবনের সব চেয়ে জরুরী বিষয়, জীবনের সত্য উপলব্ধির একমাত্র আলো একমাত্র শক্তি আল্লাহতাআলার আলো আর আল্লাহতাআলার আলোই তাঁর মহান রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

লিখেছেন–আল্লামা ইমাম হায়াত
( ইসলামের মূল ধারা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের প্রকৃত ধারার এ যুগের পূণরূজ্জীবনকারী এবং বিশ্ব সুন্নী আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ও বিশ্ব ইনসানিয়াত বিপ্লবের #প্রবর্তক)

 

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

বঙ্গবন্ধু হত্যার মাধ্যমে এ জাতি কলঙ্কিত হয়েছে বিশ্ব দরবারে
বেসরকারি চাকরিজীবীদের বোবা কান্না
মহান জাতীয় শহীদ দিবস শাহাদাতে কারবালা দিবসে ফেনীতে র‍্যালী
মুসলিম মিল্লাতের মহান জাতীয় শহীদ দিবস উপলক্ষে ওয়ার্ল্ড সুন্নী মুভমেন্টের সমাবেশ
মহররম ঈমানী শোক ও ঈমানী শপথের মাস, আনন্দ উদযাপনের নয় – আল্লামা ইমাম হায়াত
করোনায় সারাদেশে আরও ৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৯৮
বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
পেপসির সঙ্গে বিষ খাইয়ে খুন, যুবকের যাবজ্জীবন