১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

সেনবাগে সম্পত্তি বিরোধের জেরে হামলা,ভাংচুর ও যুবককে ছিনিয়ে নিয়ে হত্যাচেষ্টা,থানায় মামলা

 

মোঃ ফখর উদ্দিন,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর সেনবাগে সম্পত্তি বিরোধের জের ধরে রাতের আঁধারে বহিরাগত মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা বসত বাড়ীতে ব্যাপক হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে।খবর পেয়ে গৃহকর্তা আব্দুর রহিম ও তার ছেলে আবদুল্লাহ আল মামুন বাড়ীর সামনে এলে তারাও হামলার শিকার হয়।গৃহকর্তা রহিম এর উপর হামলার প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে গৃহকর্তার ছেলে আবদুল্লাহ আল মামুন কে ছিনিয়ে নিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়।এসময় গৃহকর্তার স্ত্রী লুৎফুন নাহার ঝর্না ও মেয়ে ফরিদা ইয়াছমিন মুন্নি সহ পারিবারের অপর নারী সদস্যরা এগিয়ে এলে তাদেরকেও এলোপাতাড়ি পিটিয়ে,কাপড় ছিঁড়ে তাদের শ্লীলতাহানী করে।সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত আবদুল্লাহ আল মামুন কে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে সেনবাগ সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে।সেখানে তার অবস্থা উন্নতি না হওয়ায় পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে পার্শ্ববর্তি জেলা ফেনীতে স্থানান্তর করা হয়।নির্মম এ ঘটনাটি বৃহস্পতিবার(৩ অক্টোম্বর) রাতে নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার বীজবাগ ইউপির উত্তর বীজবাগ গ্রামের ইউনুছ চৌকিদার বাড়ীতে ঘটে।

এ ঘটনায় গৃহকর্তা আবদুর রহিম বাদী হয়ে সেনবাগ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ০৪,তাং-০৬.১০.১৯ ইং।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বীজবাগ ইউপির উত্তর বীজবাগ গ্রামে ইউনুছ চৌকিদার বাড়ীর মৃত আমিন উল্যার ছেলে অলি উল্যার ছেলের সাথে একই এলাকার মৃত হাবিব উল্যার ছেলে আব্দুর রহিমের দীর্ঘদিন থেকে সম্পত্তি বিরোধ চলে আসছে।হাবিব উল্যার ছেলে প্রবাসী আবদুর রহিম তার নিজস্ব জায়গায় ঘরের পাশে সীমানা প্রচীরের কাজ শুরু করে সমাপ্তি পর্যায়ে আসা মাত্রই ঘটনার রাতে একই বাড়ীর অলি উল্যার ছেলে নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে বহিরাগত মুখোশধারী ১২/১৪ সন্ত্রাসী কমান্ড স্টাইলে এসে আবদুর রহিম এর বাড়ীর গেইটে ককলেট ফুটিয়ে আতংক সৃষ্টি করে।এ সময় এলাকার লোকজন চরম আতংকিত হয়ে পড়ে। একই সময়ে তারা আবদুর রহিমের বাড়ীর নব নির্মিত সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে গুটিয়ে দেয়। এ সময় ঘরের ভিতর থেকে এ দৃশ্য দেখে আবদুর রহিমের স্ত্রী লুৎফুন নাহার ঝর্না, মেয়ে ফরিদা ইয়াছমিন মুন্নি বাড়ীর বাহিরে থাকা তার পিতা গৃহকর্তা আবদুর রহিম কে বিষয়টি জানায়। তিনি সংবাদ পেয়ে একমাত্র পুত্র সন্তান প্রকৌশলী আবদুল্লা আল মামুন কে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসা মাত্রই সন্ত্রাসীরা ছেলের সামনে পিতার উপর হামলা করে। সাথে সাথে ছেলে আবদুল্লাহ বাবার উপর হামলার প্রতিবাদ ও তাদের প্রতিহত করার চেষ্টা করে।
এ সময় ঘরে থাকা আবদুর রহিমের স্ত্রী ও মেয়ে কাজের মেয়ে এগিয়ে এসে সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদ করলে তাদেরকেও তারা এলোপাতাড়ী হামলা চালিয়ে ও শ্লীলতাহানী করে। আবদুর রহিমের ছেলে আবদুল্লাহ কে পরিবারের লোকজনের সামনে থেকে ছিনিয়ে নিয়ে এলোপাতাড়িভাবে পিটিয়ে ও দেশিয় নানা রকম অস্ত্র দিয়ে আঘাত করতে করতে নিয়ে য়ায়।যার এক পর্যায়ে তার ২টি দাঁত ভেঙ্গে পড়ে যায়।এ সময় তারা তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। সন্ত্রাসীদের কবল থেকে বাঁচার আপ্রাণ চেষ্টা করে কোন রকম পালিয়েএসে তার এক নিকটাত্মীয়ের ঘরে আশ্রয় নেয়।সেখান থেকে তারা তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় সেনবাগ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। এ সংবাদ চারপাশে ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে লোকজন এগিয়ে আসার টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় গৃহকর্তা আবদুর রহিম বাদী হয়ে ৪ জন কে নামীয় ও ১২ জন কে অজ্ঞাত আসামী করে সেনবাগ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সেনবাগ থানার এস আই জসিম উদ্দিন জানান,মামলা হয়েছে ও আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

ফজলে রাব্বীর আসনে নৌকার হাল ধরতে চান যারা
মহান জাতীয় শহীদ দিবস শাহাদাতে কারবালা দিবসে ফেনীতে র‍্যালী
মুসলিম মিল্লাতের মহান জাতীয় শহীদ দিবস উপলক্ষে ওয়ার্ল্ড সুন্নী মুভমেন্টের সমাবেশ
মহররম ঈমানী শোক ও ঈমানী শপথের মাস, আনন্দ উদযাপনের নয় – আল্লামা ইমাম হায়াত
এমপির বিরুদ্ধে উপজেলা চেয়ারম্যানকে কিল-ঘুষির অভিযোগ
বঙ্গবন্ধুর সমাধীস্থলে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের শ্রদ্ধাঞ্জলী
অসহায় মানুষের মাঝে মাংস বিতরণ করল ‘জীবন আলো’
নোয়াখালীতে প্রবাসীকে মারধর ও লুটপাটের অভিযোগ