৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

লকডাউন নিশ্চিত না হলে করোনা মোকাবিলার প্রস্তুতি ভেস্তে যাবে : এমপি খোকা

নারায়ণগঞ্জ ৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার আলোকে মহামারি রূপ নেয়া করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) সংসদীয় এলাকাসহ পুরো নারায়ণগঞ্জ জেলাকে গত ৮ এপ্রিল থেকে অবরুদ্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। সোনারগাঁ উপজেলা জনপ্রতিনিধি ঐক্য ফোরামসহ বিভিন্ন সংগঠণের সমন্বয়ে করোনা মোকাবলোয় আমরা একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছি। কিন্তু পরিপূর্ণ লকডাউন নিশ্চিত করতে না পারলে করোনা মোকাবিলার সকল উদ্যোগই ভেস্তে যাবে। মানুষের জীবন বাঁচাতে কঠোরতম যে কোনো সিদ্ধান্তকেই সোনারগাাঁসী স্বাগত জানাবে। শুক্রবার নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও মোগরাপাড়া চৌরাস্তায় খোকার কার্যালয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য আবারও ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) দেয়ার সময় উপজেলার বিভিন্ন কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন ।
এসময় তিনি বলেন, সম্প্রতি ঈদ কেনাকাটার নামে এলাকার বিপনী বিতানগুলো ছাড়াও হাট-বাজার ও পাড়া-মহল্লার চায়ের দোকানগুলোও করোনা মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এরই মধ্যে গার্মেন্টস খোলা রাখায় অসেচতনভাবে শ্রমিকরা সোনারগাঁয়ে ঢুকে পড়ায় করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি আরও বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। যা আগামী দিনে নিয়ন্ত্রণে রাখা আমাদের জন্য খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। যেহেতু আমি মাঠে সরাসরি কাজ করছি, সেহেতু করোনা পরিস্থিতির বাস্তব চিত্রও আমি উপলব্ধি করছি। সেনাবাহিনী, প্রশাসন ও পুলিশের যৌথ অভিযান, সাংবাদিক এবং জনপ্রতিনিধিসহ সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে সাধারণ মানুষদেরকে বুঝানোর পরও অনেকেই এখনো সচেতন হচ্ছেন না।

উল্লেখ্য, সোনারগাঁও সেন্ট্রাল করোনা মনিটরিং সেল এবং “আমরা করোনা যোদ্ধা” নামে ওয়ার্ড ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবক টীম গঠণ করে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সোনারগাঁয়ের প্রতিটি এলাকায় পরিকল্পনা অনুযায়ী ব্যাপক কাজ করছে। কিন্তু এলাকার সর্বস্তরের মানুষকে পুরোপুরি সচেতন করা যাচ্ছে না, তারা অনেকটাই অসেচতন। করোনা মহামারীতে সোনারগাঁ উপজেলার সকল মার্কেট, দোকানপাট খোলা এবং অবিরাম বাঁধাহীন চলাফেরায়, লকডাউন শিথিলতায় এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির দিকে আমরা ধাবিত হচ্ছি। এতে সচেতন সোনারগাঁবাসী অনিশ্চিত ভবিষ্যতের আশঙ্কায় আতঙ্কিত ও গভীরভাবে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় সোনারগাঁবাসীকে বাঁচাতে পরিপূর্ণ লকডাউনের বিষয়টি পর্যালোচনায় এনে দ্রুততার সাথে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণসহ প্রশাসন ও পুলিশের পক্ষথেকে আরও জোরালো ভূমিকা রেখে জনগণকে আইন মানাতে বাধ্য করার ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে ইতিপূর্বে স্থানীয় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারকে উপানুষ্ঠানিক পত্র দিয়েছিলেন।

এদিকে গত ১৪ মে, ২০২০ বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সের পর নারায়ণগঞ্জ জেলার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে জরুরী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য এ.কে.এম সেলিম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ.কে.এম শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মোঃ নজরুল ইসলাম বাবু এবং নারয়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার, র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক (সিও), সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা, জেলা সিভিল সার্জন ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের উপস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জ জেলায় করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিস্তারিত আলোচনা হয়। আলোচনা সভায় প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের হটষ্পট হিসেবে পরিচিত সোনারগাঁ উপজেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি পাওয়ায় এলাকাবাসী আতঙ্কিত হওয়ার কথা এবং সোনারগাঁয়ে করোনা পরিস্থিতি ক্রমাবনতির বিষয়টি খোকা উপস্থিত সকলের সামনে তুলে ধরেন। সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক বিপনী বিতানসমূহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে না চলায় এবং সোনারগাঁ উপজেলায় কোভিড-১৯ এর প্রাদূর্ভাব আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় এমপি খোকার অনুরোধের প্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক সোনারগাঁয়ের সকল বিপনী বিতানসমূহ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষনা দেন এবং উপস্থিত জেলা পুলিশ সুপার তাৎক্ষণিকভাবে ফোন করে সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জকে সোনারগাঁয়ে লকডাউন নিশ্চিত করণে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দেন। তৎপ্রেক্ষিতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ১৫ মে, ২০২০ শুক্রবার হতে সোনারগাঁ উপজেলার সকল বিপনী বিতানসমূহ বন্ধ ঘোষনা করে সোনারগাঁ উপজেলা প্রশাসন গণবিজ্ঞপ্তি জারী করেছে। তবে ঔষধের ফার্মেসী, কৃষি পণ্য, সার ও বীজ দোকান, পশুখাদ্য, মুদি দোকান, কাঁচা বাজার ও মৌসুমী ফলের বাজারসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির দোকানসমূহ এর আওতামুক্ত থাকবে। তাতে করে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কার্যক্রম কিছুটা হলেও সহায়ক হবে। কিন্তু পরিপূর্ণ লকডাউন নিশ্চিত না করতে পারলে করোনা মোকাবলোয় সকল উদ্যোগই ভেস্তে যাবে। মানুষের জীবন বাঁচাতে সময়োপযোগী যে কোনো কঠোরতম সিদ্ধান্তকেই সোনারগাাঁসী স্বাগত জানাবে। খোকার অনুরোধের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিকভাবে সোনারগাঁ উপজেলার সকল বিপনী বিতানসমূহ বন্ধ ঘোষনা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারী করার ব্যবস্থা গ্রহণ করায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসককে এবং লকডাউন নিশ্চিত করণে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দেয়ায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান তিনি।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, না মানলে শাস্তি
ডলারের বিপরীতে আবারও কমলো টাকার মান
ঈদ সামনে রেখে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন চালু ৬ জুলাই
পদ্মা সেতুর বুথ ব্যারিয়ারে বাসের ধাক্কা
বাড়ছে করোনা আসছে কঠোর নির্দেশনা!
মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর সাধারণের জন্য উন্মুক্ত হবে পদ্মা সেতু
পদ্মা সেতু সাঁতরে মঞ্চে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলল কিশোরী
মাদারীপুর শিবচরের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী