১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ |

স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই ব্যাংকিং কার্যক্রম;

দুপুর দুইটা, মতিঝিলে সোনালী ব্যাংকের করপোরেট শাখায় মানুষ গিজগিজ করছে। সেবা নেয়ার জন্য গ্রাহকদের দীর্ঘ লাইন। লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ থেকে শুরু করে ২৫ বছরের যুবক পর্যন্ত নানা বয়সের মানুষ।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যেও সামাজিক দূরত্বের বালাই ছিল না সেখানে। গায়ে গা লাগিয়ে যেমন লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন তেমনি বসার সিটগুলোতে ঠাসাঠাসি করে বসে আছেন অসংখ্য মানুষ। ৬৬ দিন পর পুরোদমে ব্যাংক খোলার পর মতিঝিল পাড়ার সোনালী ব্যাংকে রোববার ও সোমবার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

এদিকে রূপালী ব্যাংকের মতিঝিল শাখায় তেমন ভিড় ছিল না। কাউন্টারের সামনে দু-তিনজন গ্রাহক অপেক্ষা করছেন। শাখার কর্মকর্তারা কোনো দূরত্ব না মেনে আগের মতোই পাশাপাশি বসেছেন।একই অবস্থা দেখা যায় অগ্রণী ব্যাংকের প্রধান শাখা ও জনতা ব্যাংকের স্থানীয় শাখাতেও। এসব ব্যাংকেও তেমন ভিড় দেখা যায়নি।

ঢাকার অন্যতম এই বাণিজ্যিক এলাকায় একেবারেই দেখা যায়নি স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা। ব্যাংকসহ প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা দিলেও গ্রাহক এবং সেবা নিতে আসা মানুষদের মধ্যে নেই স্বাস্থ্য সচেতনতা।

সরকারি ছুটি শুরু হওয়ার পর সীমিত আকারে ব্যাংক সেবা চালু থাকলেও রোববার থেকে আগের মতো পুরোপুরি খুলে দেয়া হয়েছে ব্যাংকিং সেক্টর। একদিকে করোনা পরিস্থিতির কারণে কড়াকড়ি আবার ঈদের ছুটির পরে ব্যাংক খোলায় সবাই যেন ব্যাংকমুখি হয়ে পড়েছে। অনেকে আবার স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা বিবেচনায় নিয়ে নিজে না গিয়ে অফিস কিংবা বাসার দাঁড়োয়ান-পিয়ন দিয়ে ব্যাংকের কাজ করতে পাঠিয়েছেন। তাই স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই অনেকে ব্যাংকে ভিড় করছেন।

ব্যাংকের পাশাপাশি মতিঝিলের বিভিন্ন অলিগলিতে অনেকটা আগের মতোই মানুষ চলাচল করছে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে। ছোট ছোট দোকানের সামনের ভিড় করছে, যেন করোনা বলতে কিছুই নেই এখানে।

মতিঝিল সোনালী ব্যাংকের করপোরেট শাখার কর্মকর্তা মো. হাবিবুর রহমান বলেন, আমাদের ব্যাংকের পক্ষ থেকে আমরা কাস্টমারদের স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিয়েছি। তারপরও অনেকদিন পর ব্যাংক খোলায় গতকালও যেমন ভিড় ছিল, আজও অনেকটা তেমনই। সবাইতো সচেতন। আমার মনে হয় এটা দুয়েকদিন পর থাকবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম জানান, ব্যাংক খোলার আগে থেকেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ১৩ দফা নির্দেশনা দেয়া হয় এবং মানুষকে সচেতন করতে আগে থেকেই প্রচারণা চালানো হয়েছে।
কিন্তু নিজ নিজ অবস্থান থেকে মানুষ সচেতন না হলে সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়বে। এজন্য সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

ইসলামী ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু রেজা মো. ইয়াহিয়া বলেন, দূরত্ব বজায় রেখে কাজ চালাতে প্রধান কার্যালয়ে পালাক্রমে কাজ শুরু হয়েছে। শাখাগুলোতে আগের মতো সবাই কাজ করছেন। সবার জন্য মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এভাবেই নিরাপদ রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।

ছবিঃ ওসমান

#মোরশেদ

(Visited ৪০ times, ১ visits today)

আরও পড়ুন

টাটা পাওয়ার ডিডিএল ও ব্লকনটসের মধ্যে চুক্তি
ওমেন্স ইরার সবচেয়ে বড় বিজনেস সামিট অনুষ্ঠিত
মহান জাতীয় শহীদ দিবস শাহাদাতে কারবালা দিবসে ফেনীতে র‍্যালী
মুসলিম মিল্লাতের মহান জাতীয় শহীদ দিবস উপলক্ষে ওয়ার্ল্ড সুন্নী মুভমেন্টের সমাবেশ
যে কোন ব্রান্ডের মোবাইল ক্রয়ে পাচ্ছেন আজীবন সার্ভিস ওয়ারেন্টি
মহররম ঈমানী শোক ও ঈমানী শপথের মাস, আনন্দ উদযাপনের নয় – আল্লামা ইমাম হায়াত
আমেরিকা থেকে বিনিয়োগ পেল ‘অন দ্য ওয়ে’
ঈদ আনন্দ মুখর হয়ে উঠুক ফয়’স লেক এ