২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

কোভিড ১৯ ও বৈশ্বিক শিক্ষাব্যবস্থা

বর্তমান বিশ্বে আতংকের আরেক নাম। কোভিড -১৯,যা করোনা ভাইরাস(১৯৬০ সালে আগত) গোষ্ঠির নবীনতম সদস্য। বিশ্বের এহেন কোনো সেক্টর নেই যেখানে এই ভাইরাস তার ভয়াল থাবা বসায় নি।স্বাভাবিক জীবন ধারায় এসেছে আমূল পরিবর্তন দীর্ঘসময়ের লকডাউনে গৃহবন্দী,মাস্ক আর গ্লাভসের জীবন জেন নতুন স্বাভাবিকতা হয়ে দাড়িয়েছে।

বিশ্বের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ।এতে একদিকে বিপর্যস্ত হচ্ছে শিক্ষাক্ষাত অপরদিকে ভেঙে পড়েছে অর্থনৈতিক অবকাঠামো। মোটকথা,এরূপ অবস্থা বিশ্ব খুব কম সময়ই দেখেছে।এর মধ্যে অনলাইন পাঠদান ব্যবস্থা চালু হলেও তার রয়েছে নানামুখী প্রতিবন্ধকতা।সকল স্তরের শিক্ষার্থীর কাছে ইন্টারনেট সেবার অপ্রতুলতা এই খাত কে করেছে প্রশ্নবিদ্ধ। অস্থায়ি ভিত্তিতে এসব ব্যবস্থা নেওয়া হলেও অনেকাংশে নানা জটিলতার কারণে তা ব্যর্থ হচ্ছে। আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া সহ বেশ কিছু দেশে পুরোপুরি একাডেমিক ক্যালেন্ডার কে অনলাইনে নেবার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যদিও সেটা অন্যান্য দেশের পক্ষে বাস্তবায়ন করা অনেকটাই দুরূহ। 

মার্চের শুরুর দিকে  কানাডাতে কিছু প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও এপ্রিল থেকে তা বন্ধ রয়েছে।শিক্ষকরা নানা প্লাটফরম এ ক্লাস নিচ্ছেন,লাইভ বা প্রি রেকর্ডেড ভিডিও লেকচার এর মাধ্যমে।বাংলাদেশে ও এর ব্যত্যয় ঘটে নি।ইংল্যান্ড সরকার ও শিক্ষাব্যবস্থায় বড় রকমের বরাদ্দ করেছে। বাংলাদেশ টেলিভিশন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের রেকর্ডেড ক্লাস নিচ্ছেন।এছাড়াও বিবিসি সহ অন্যান্য প্লাটফরম এগিয়ে এসেছে।বর্তমান প্রেক্ষাপট এ জুম এ্যাপ এর ব্যবহার বেড়েছে বহুলাংশে। ব্যবহারকারী বান্ধব এবং সহজ একসেস থাকার কারণে মূলত এটার ব্যবহার বেড়েছে।বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়েছে অনলাইনে পাঠদানের নানা কর্মপরিকল্পনা। 

মিশরের হেলওয়ান বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকান ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় এসাইনমেন্ট,রিসার্চ পেপার সহ নানাভাবে শিক্ষার্থী দের পড়ালেখার সাথে সংশ্লিষ্ট রাখতে প্রয়াস চালাচ্ছে।এছাড়া জুমের “ব্রেকআউট রুম” এর মাধ্যমে পূর্বেকার ক্লাস এর তথ্য নেওয়া সম্ভব হচ্ছে।ইউনেস্কো  সার্ভেকৃত তথ্যমতে ৮৪ টি দেশের মধ্যে ৫৮ টি দেশ পরীক্ষা পিছিয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রে স্থগিত করেছে।১১ টি দেশে বাতিল হয়েছে এবং ২৩ টি দেশে বিকল্প পদ্ধতি চালু করেছে।

এত প্রতিকুলতার মধ্যেও রয়েছে আশার আলো।ইতিমধ্যে বিশ্বের সকল দেশ একজোট হয়ে এই ভাইরাস এর ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে বদ্ধপরিকর হয়েছে।বিজ্ঞান বিষয়ক ম্যাগাজিন ল্যানসেট এর প্রদত্ত তথ্যমতে,৯৭ টি ভ্যাকসিন ইতিমধ্যে ইতিবাচক ভাবে প্রথম ধাপ পার হয়েছে এর মধ্যে ২০ টি ভ্যাক্সিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এ এবং ৭ টি ভ্যাক্সিন ইতিমধ্যে থার্ড স্টেজ হিউম্যান  ট্রায়াল এ রয়েছে।রাশিয়া ইতিমধ্যে ভ্যাক্সিন বাজারে ছাড়ার প্রকৃয়া তে রয়েছে।রাশিয়ার আবিস্কৃত ভ্যাক্সিন সে দেশের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কন্যার শরীরে প্রয়োগ করেছে।মোটকথা এই অবস্থান থেকে অচিরেই আমরা মুক্তি পাব আর মুক্ত পৃথিবী তে আমরা আবার বুক ভরে নিশ্বাস নিতে পারবো এটাই আমাদের প্রত্যাশা,আর আমাদের স্লোগান হোক “সব সম্ভব হবে_সব ঠিক হয়ে যাবে”।

গবেষক, ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় 

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

শপথ নিন সাংবাদিক নিপীড়কদের সাথে কোন আপোষ করবোনা
প্রাকৃতিক দুর্ভিক্ষ নয় রাজনৈতিক দুর্ভিক্ষই বিশ্বব্যাপী জীবন মানবতার মহা সংকট
পরিবার থেকেই ঘটছে শিশু সহিংসতা
রাস্তা সম্প্রসারণে গাছ কাটা, শতবছরের স্বাক্ষী ধ্বংসের অপরাধ
করোনা ভ্যাকসিন পরিস্থিতি
শেখ হাসিনার কৌশলী নেতৃত্বেই করোনা মোকাবেলায় সফল বাংলাদেশ
করোনার ভুয়া রিপোর্ট: বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশঙ্কা বাংলাদেশের
বিশ্বের চিকিৎসা ইতিহাসে নতুন আতঙ্কের নাম বাংলাদেশ! ফ্লাইট বন্ধ করে দিচ্ছে বিদেশিরা