২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

লালমনিরহাটে ব্রীজ নির্মাণে অনিয়ম, কাজ বন্ধ করে দিয়েছে এলাকাবাসী

লালমনিরহাট হাতীবান্ধা উপজেলাধীন উত্তর সিন্দুর্না এলাকায় ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের অধীনে বরাদ্দকৃত ২৯লক্ষ টাকার ব্রীজ নির্মাণের ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। ফলে ব্রীজের ঢালাই কাজ বন্ধ করে দিয়েছে এলাকাবাসী। তবে ঠিকাদারের দাবী হাতীবান্ধা উপজেলা পি,আই,ও অফিসারের নির্দেশ মোতাবেক কাজ করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার সকালে হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তর সিন্দুর্না এলাকায় সাবেক চেয়ারম্যান খতিব উদ্দিনের বাড়ির পশ্চিমে ব্রীজের এ ঢালাই বন্ধ করে দেয় এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী জানান, হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তর সিন্দুর্না এলাকার সাবেক চেয়ারম্যান খতিব উদ্দিনের বাড়ির পশ্চিমে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের ২৯লক্ষ টাকা ব্যয়ে একটি ব্রীজ নির্মাণের বরাদ্দ দেয়া হয়। ব্রীজ নির্মাণের শুরু থেকে দরপত্রের কোন শিডিউল মোতাবেক কাজ করেনি ঠিকাদার। ব্রীজ নির্মাণের ব্যবহার করা হয়েছে নিম্নমানের সিমেন্ট, লোকাল বালু, পুরাতন রড ও পুরাতন ব্রীজের নষ্ট খোয়া। ব্রীজের উচ্চতা শিডিউলে ১৮ফিট থাকলেও তা করা হয়েছে ১৪ফিট। ছাদে রডের পরিমানও দেয়া হয়েছে কম। ফলে গতকাল বুধবার সকালে ঠিকাদার ব্রীজের ছাদ ঢালাই দেয়ার চেষ্টা করলে তা বন্ধ করে দেয় এলাকাবাসী। ব্রীজের উচ্চতা ৪ফিট কম হওয়ায় বন্যায় সময় ব্রীজের সামনে কচুরিপানা জমাট বাধবে। ফলে বন্যার পানির স্রোতে ব্রীজের দুই পাশের রাস্তার ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

এলাকাবাসী আরও জানান, ব্রীজের কাজ বুঝে নেয়ার দায়িত্বে থাকা হাতীবান্ধা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পি,আই,ও) ফেরদৌস আহমেদ থাকলেও মোটা অংকের টাকা উৎকোচের বিনিময়ে তিনি সব অনিয়ম ও দুর্নীতি দেখেও না দেখার ভান করছে। ফলে সরকারি সিডিউল মোতাবেক এখানে কোন কাজ করা হয়নি।

তাই এলাকাবাসী সরকারি সিডিউল মোতাবেক ব্রীজের কাজ না করার পিছনে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাতীবান্ধা, জেলা প্রশাসক লালমনিরহাট ও সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। ব্রীজের নির্মাণে প্রকৃত ঠিকাদার লালমনিরহাটের আব্দুল হাকিম হলেও তা ৮লক্ষ টাকায় কিনে নিয়ে কাজ করছে ওই উপজেলার সিন্দুর্না ইউনিয়নের সেলিম হোসেন নামে এক যুবক।

এ বিষয়ে ব্রিজ নির্মাণের সাইড ঠিকাদার সেলিম হোসেন বলেন, কাজে কোন অনিয়ম করা হয়নি। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার নিয়মিত তদারকিতে ব্রিজ নির্মাণ করা হচ্ছে। ব্রিজের উচ্চতা ৪ ফিট কমানোর বিষয়ে জানতে চাইলে ওই ঠিকাদার বলেন, গ্রামীণ রাস্তাটি নিচু হওয়া এলাকাবাসী এর আগে ব্রিজটি নিচু করার জন্য বারবার বলেছিলো। সেই আলোকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার দেখানো মাপে ব্রিজের উচ্চতা একটু কমানো হয়েছে। তবে এলাকার দুই একজন তার কাছ থেকে অবৈধ সুবিধা আদায় করতে না পেরে ব্রিজের ঢালাই বন্ধ করে দেয়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পি,আই,ও) (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ফেরদৌস আহমেদ বলেন, ব্রিজের উচ্চতা নিয়ে একটু ঝামেলা হয়েছে। ফলে এলাকাবাসী কাজ বন্ধ করে দেয়।এ সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সামিউল আমিন বলেন, এবিষয়ে কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ নেওয়া হবে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

ককটেল বিস্ফোরণ কাদের মির্জার সাজানো নাটকঃ কোম্পানীগঞ্জ আ’লীগ
এবার কাদের মির্জার ছোট ভাইয়ের নেতৃত্বে বাস ভাংচুর
রফিকুল ইসলাম মাদানীকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ
সেতুমন্ত্রীর পক্ষে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ বিতরণ
করোনার স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে মাইক হাতে ছুটছেন বন্দর ইউএনও
রুপসী বাংলা ব্লাড ডোনেট ক্লাবের ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং নির্নয় ক্যাম্প
কাদের মির্জার ‘নেতৃত্বে’ হোটেল ভাংচুর, আহত ৬
সেনা কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশুদিবস উদযাপিত