৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

মিয়ানমারের পক্ষ ছাড়লো ৯ দেশ

রোহিঙ্গাসহ মিয়ানমারের সংখ্যালঘু ইস্যুতে আফ্রিকা ও প্রশান্ত মহাসাগরের নয়টি দেশ অবস্থান পরিবর্তন করে নিয়েছে। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের কর্ম অধিবেশনে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে তোলা একটি প্রস্তাবের সমর্থন জানিয়েছে দেশগুলো। দেশগুলো হল- ক্যামেরুন, ইকুয়েটরিয়াল গিনি, নামিবিয়া, কেনিয়া, লেসেথো, মোজাম্বিক, তানজানিয়া, পালাউ ও সলোমন দ্বীপপুঞ্জ।

বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর, ২০২০) রাতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে তোলা প্রস্তাবটির পক্ষে ১৩০টি ভোট এবং বিপক্ষে ৯টি ভোট পড়ে। তবে এর আগে ২০১৯ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে দেশটির রোহিঙ্গা ইস্যুসহ অন্যান্য সংখ্যালঘু বিষয়ক প্রস্তাবের পক্ষে বা বিপক্ষে কোনো অবস্থান না নিয়ে ভোটদান থেকে বিরত থেকেছিল ওই দেশগুলো।

শনিবার (১ জানুয়ারি) নিউইয়র্কের কূটনৈতিক সূত্র, মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ এবং আনান কমিশনের এক সদস্যের টুইট বার্তা থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

গত বছরের নভেম্বরে জাতিসংঘের তৃতীয় কমিটিতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা প্রস্তাবটি তুলেন। এসময় প্রস্তাবে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের (আইসিজে) অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) তদন্ত শুরুর প্রসঙ্গ এবং রোহিঙ্গা ও সংখ্যালঘু অন্য জনগোষ্ঠীদের মিয়ানমারের জাতীয় নির্বাচনসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে অব্যাহতভাবে বঞ্চিত করার মতো বিষয়গুলো প্রকাশ্যে আসে। ওই প্রস্তাবে নিপীড়িত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীদের নাগরিকত্ব দেওয়া, প্রত্যাবাসনের সহায়ক পরিবেশ তৈরি করাসহ অন্যান্য কিছু বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যও বলা হয় মিয়ানমারকে।

এদিকে শনিবার মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ফেসবুক পেজ থেকে জানানো হয়, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে তৃতীয় কমিটির তোলা প্রস্তাব গত বৃহস্পতিবার রাতে ৭৫তম জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৪৮তম প্লেনারি অধিবেশনে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তবে এর আগে প্রস্তাবটি নিয়ে ভোটাভুটির জন্য আহ্বান জানিয়েছিলেন মিয়ানমার। এছাড়াও জাতিসংঘে দেশটির স্থায়ী প্রতিনিধি কিয়াউ মো তুন দেশটির বিরুদ্ধে তোলা প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন। তিনি বলেন, রাখাইন ইস্যু নিয়ে তাদের ওপর কোনো প্রকার রাজনৈতিক চাপ সুফল বয়ে আনবে না। মিয়ানমারের বিরুদ্ধে এ চাপকে অযৌক্তিক বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

কিয়াউ মো তুন আরও বলেন, মানবাধিকারের প্রসঙ্গ তুলে জাতিসংঘকে অপব্যবহার এবং মিয়ানমারকে এভাবে চাপ প্রয়োগ করা কিছুতেই মেনে নেবে না তারা। রাখাইন ইস্যুতে সংকট সমাধানে এসব সুফল আনবে না বলেও প্রস্তাবে দ্বিমত পোষণ করেন তিনি।

সাবেক আনান কমিশনের সদস্য ও ডাচ কূটনীতিক লেটেশিয়া ভ্যান্ডেন অ্যাসাম প্রস্তাবের ওপর আসা ভোট বিশ্লেষণ করেন। তিনি বিশ্লেষণের বিষয়টি টুইট বার্তায় তুলে ধরেছেন। লিখেছেন, ২০১৯ সালের সাথে তুলনা করলে দেখা যায় ৯টি দেশ নিজ অবস্থান বদলের জন্য প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে। এবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের প্লেনারি অধিবেশনেও প্রায় একই রকম প্রস্তাব তোলা হয়। কিন্তু এবার ‘অ্যাবস্টেইন’ অবস্থান থেকে দেশগুলো সরে গিয়ে পক্ষে ভোট প্রদান করেছে। বিপরীতে বাংলাদেশসহ ১৩০টি দেশ প্রস্তাবের পক্ষে ভোট প্রদান করেছে।
এদিকে মিয়ানমার, চীন, রাশিয়া, বেলারুশ, কম্বোডিয়া, লাওস, ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম ও জিম্বাবুয়ে- এ ৯টি দেশ প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট প্রদান করেছে। ভারত, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা, জাপানসহ ২৫টি দেশ ‘অ্যাবস্টেইন’ ভোট দিয়েছে। প্রস্তাবটি ১৩০-৯ ভোটে গৃহীত হয়েছে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে জেলেনস্কি যুক্তরাষ্ট্রের সতর্কবার্তা শোনেননি: বাইডেন
নিষিদ্ধ হলো শিয়াদের বির্তকিত ‘লেডি অভ হ্যাভেন’সিনেমা
কলকাতার বাংলাদেশ উপহাইকমিশনের সামনে গুলিতে নিহত ২
নবীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য, নুপুর শর্মার বিরুদ্ধে মামলা
চাদে স্বর্ণখনি শ্রমিকদের সংঘর্ষে নিহত ১০০
তিস্তা নদীর পানিবণ্টন চুক্তি না হওয়া লজ্জাজনক : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ছে মাঙ্কিপক্স
জুন থেকে ফের চালু হচ্ছে বাংলাদেশ-ভারত ট্রেন