২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ‘অবশ্যই ইতিহাস’: ফখরুল

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একাত্তরের ৭ মার্চ ভাষণ ‘অবশ্যই ইতিহাস’ বলে মন্তব্য করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার ( ২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে গণমাধ্যমের সাথে মতবিনিময়কালে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব এই মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলামের মতে, ‘আমরা শুধু ৭ মার্চ নয়, ২ মার্চ, ৩ মার্চও পালন করছি। আমরা ২ মার্চ কেনো পালন করছি? সেদিন প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন আ স ম আবদুর রব তখনকার ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতা। আমরা সেটাও পালন করছি, দ্যাট ইজ এ পার্ট অব হিস্ট্রি। তিন তারিখ কি? স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেছেন শাহজাহান সিরাজ সাহেব। এটাকে অস্বীকার করবো কি করে? আজকে তার রাজনৈতিক ধারা ভিন্ন, রাজনৈতিক দল ভিন্ন হতে পারে কিন্তু দ্যাট ইজ রিয়েলিটি, দ্যাট ইজ পার্ট অব হিস্ট্রি।’

‘ঠিক একইভাবে ৭ মার্চের শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণও ইতিহাস। অবশ্যই তার সন্মান, তার মর্যাদা তাকে দিতে হবে।’ মির্জা ফখরুল স্পষ্ট করে বলেন, ‘কাউকেই খাটো করার কোনো রকম ইচ্ছা আমাদের নেই এবং আমরা বিশ্বাস করি সেটা উচিতও না। বিশেষ করে স্বাধীনতার ব্যাপারে প্রকৃত সত্য সকলকে উৎঘাটন করতে হবে।

‘একই সঙ্গে ২৬ মার্চ শহীদে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যে ঘোষণা জাতিকে অনুপ্রাণিত করেছিলো এবং সমগ্র জাতি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো এটাও ইতিহাস। সুতরাং এগুলো কোনটাই অস্বীকার করা যাবে না।’

জাতিকে বিভক্ত করার জন্য আওয়ামী লীগকে অভিযুক্ত করে তিনি বলেন, ‘দুর্ভাগ্য আমাদের ৫০ বছর পরে জাতি হিসেবে আমরা বিভক্ত হয়ে পড়েছি। সেটার জন্য কৃতিত্ব আওয়ামী লীগেরই। জাতিকে প্রথম থেকে তারা স্বাধীনতার পক্ষে, স্বাধীনতার বিপক্ষে, চেতনার পক্ষে, চেতনার বিপক্ষে নিয়ে গেছে।’

ডিজিটাল আইনের কঠোর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে যে ডিজিটাল আইন তৈরি করা হয়েছে আপনারা সাংবাদিকরা তার সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী। আপনাদের প্রায় ৪শ জন বিভিন্নভাবে ভুক্তভোগী, কত জনকে জেল খাটতে হয়েছে। আপনাদের ফটোগ্রাফার কাজল, তার আগে বিখ্যাত আন্তর্জাতিক আলোকচিত্রী শহিদুল আলম এরা সবাই। সাগর-রুনিকে হত্যা করা হয়েছে। এদের অপরাধ শুধু লেখার জন্য। আমার প্রশ্ন এই জায়গায় যে, এর জন্য তো আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধ করেনি, এজন্য আমরা স্বাধীনতা চাইনি।’

ফখরুলের মতে, ‘আমরা গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ চেয়েছিলাম। আমরা কোনো একজন ব্যক্তি, কোনো একটা পরিবার, কোনো একটা দলের একান্ত ব্যক্তিগত পারিবারিক সম্পত্তি করার জন্য আমরা এদেশ স্বাধীন করি নাই।’

জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলে জিয়াউর রহমান এবং বিএনপির কিচ্ছুই যায় আসে না বলে মন্তব্য করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

আ’লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত হলেন সাংবাদিক সাজ্জাদ হোসেন চিশতী
বিএনপি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে এখন গভীর হতাশায় নিমজ্জিত: কাদের
বাংলাদেশ আওয়ামী তথ্য-প্রযুক্তি ফোরামের উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য হলেন সেলিনা খান বাদল
সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম জিল্লুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে অওয়ামী তথ্য-প্রযুক্তি ফোরামের দোয়া মাহফিল
নাইকো দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিলেন খালেদা জিয়া
‘জনগণ ভোট দেবে না জেনেই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছে বিএনপি’
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানাবে বিএনপি
বিএনপির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেন কাদের