২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা এক ধাপ উঠে এসেছি: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির পিতা দেশকে নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছেন, তিনি সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে যেতে পারেননি। কিন্তু আজকে আমরা তার স্বপ্ন বাস্তবায়নের একধাপ উপরে উঠে এসেছি। আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছেন। এজন্য তিনি যে কাজ শুরু করেছিলেন সেটা করে যেতে পারেননি। কিন্তু ৮১ সালে দেশে ফেরার পর আমি সে কাজগুলো শুরু করি। পর্যায়ক্রমে আমরা সেই কাজগুলো করতে পেরেছি। আজকের দেশের মানুষ শিক্ষা পাচ্ছে চিকিৎসা পাচ্ছে। কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা আমরা মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে দিচ্ছি। আমরা জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নের একধাপ উপরে উঠে এসেছি।

বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) দেশের ৭০টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্থাপিত ‘কমিউনিটি ভিশন সেন্টারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। রাজধানীর জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল প্রাঙ্গণে শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হোন প্রধানমন্ত্রী। তিনি এ কার্যক্রমের উদ্বোধন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এসময় রংপুরের পীরগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল ও ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট উপজেলায় ভিডিও কনফারেন্সে স্থানীয় সুবিধাভোগীদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস এই অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান ও অধ্যাপক মো. গোলাম মোস্তফা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চিকিৎসাসেবা মানুষের একেবারে দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পেরেছি। ৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে এজন্য সারাদেশে আমরা কমিউনিটি ক্লিনিক তৈরি করেছি। সেখানে চিকিৎসা সেবা চালু করেছে। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে সেগুলো বন্ধ করে দেয়। ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে আবারও আমরা সেগুলো চালু করি। এখন এসব কমিউনিটি ক্লিনিকে ৩০ প্রকার ওষুধ দেওয়া হচ্ছে। সাধারণ মানুষ যেন ঘরের কাছেই এই চিকিৎসা সেবা পায় আমরা সেটা নিশ্চিত করতে পেরেছি। এক্ষেত্রে আমরা সফলও হয়েছি।

তিনি বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে চক্ষু সেবা দেওয়া আমাদের লক্ষ্য। অর্থাৎ অন্ধ মানুষকে আলো দেখানো। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ঠিকমতো এই চিকিৎসা সেবাটা যেন পায়। এই সেবার মাধ্যমে তারা যেন সে আলো দেখার সুযোগটা পায়। সেজন্য মুজিববর্ষে আমরা আরও আন্তরিকতার সঙ্গে এই কাজগুলো করছি। চক্ষু চিকিৎসা অনেক খরচ। সাধারণ মানুষের পক্ষে এত খরচ বহন করা সম্ভব না তারা দিতেও পারে না। আমি শুধু প্রধানমন্ত্রীই না, আমি জাতির পিতার কন্যা। সবাই যেন সঠিক চিকিৎসা সেবাটা পায় সেই ব্যবস্থাটা আমরা নিশ্চিত করতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এরই মধ্যে ৯০টি কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে দেশের পাঁচ কোটি মানুষকে চক্ষু চিকিৎসার আওতায় আনা হয়েছে। আজকের ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনেকেই চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন এবং উপকৃত হচ্ছেন। এটা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কারণেই সম্ভব হয়েছে। আমরা চাই শিক্ষা-দীক্ষা স্বাস্থ্য চিকিৎসা সেবায় মানুষ ভালো থাকবে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে।

(Visited ১১ times, ১ visits today)

আরও পড়ুন

বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
চাল আমদানির সুযোগ পাচ্ছে ১২৫ প্রতিষ্ঠান
ঈদে বাড়ি যেতে মানতে হবে ১২ নির্দেশনা
মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, না মানলে শাস্তি
বাড়ছে করোনা আসছে কঠোর নির্দেশনা!
মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর সাধারণের জন্য উন্মুক্ত হবে পদ্মা সেতু
পদ্মা সেতু সাঁতরে মঞ্চে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলল কিশোরী
মাদারীপুর শিবচরের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী