১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস-নৈরাজ্য অবসানে প্রতিবাদ সমাবেশ

শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস-নৈরাজ্য-দখলদারিত্ব অবসান করা, শিক্ষার্থী-শিক্ষক-সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং শিক্ষা উপকরণ, নিত্যপণ্যের মূল্য, শিক্ষা ব্যয়, জীবনযাপন ব্যয় কমানোর দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ জাসদ কেন্দ্রীয় সংসদের উদ্যোগে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার (৩১ মে) সকাল ১১টায় কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি রাশিদুল হক ননীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মাসুদ আহাম্মেদের সঞ্চালনায় এ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি গোলাম কিবরিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান আজিজ জনি, দপ্তর সম্পাদক মারুফ বিল্লাহ, সহ-সম্পাদক নাঈম মল্লিক, আন্তর্জাতিক সম্পাদক সৌহার্দ ইসলাম অর্ক প্রমুখ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনার অভিঘাতের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যখন শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ বিরাজমান তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নষ্ট করতে ছাত্র সংগঠনের ব্যানারে কিছু দুষ্কৃতিকারী ক্যাম্পাসে দেশীয় অস্ত্র হাতে নৈরাজ্য ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে এবং অনেকে আহত হয়। এই পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করে। এমনকি সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়।

নেতৃদ্বয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ক্যাম্পাসে নৈরাজ্য-দখলদারিত্ব বন্ধের ব্যর্থতার তীব্র নিন্দা জানান।

নেতৃদ্বয় বর্তমানে শিক্ষার উপকরণের মূল্য অস্বাভাবিক বৃদ্ধিরও তীব্র নিন্দা জানান। নেতৃদ্বয় বলেন, বাড়ছে সবরকম শিক্ষা উপকরণের দাম; স্কুল ব্যয় মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে অভিভাবক। গত এক বছরে শিক্ষা উপকরণের দাম বেড়েছে ৪০ শতাংশ। ফেব্রুয়ারি থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত এর দাম বেড়েছে ১০-১৫ শতাংশ। বিশেষভাবে কাগজ, খাতা, কলম, পেনসিল, রঙ পেনসিল, ইরেজার, জ্যামিতি বক্স প্রভৃতি উপকরণের প্রত্যেকটির দাম সাম্প্রতিক সময়ে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে।

এ ছাড়া বেড়েছে আমদানি করা বইয়ের দামও। এর মধ্যে কাগজের দাম বাড়ায় বেড়েছে ফটোকপির খরচ; এভাবে প্রিন্ট, বাইন্ডিংসহ অন্যান্য শিক্ষাসংশ্লিষ্ট উপকরণের দাম বাড়ায় মোটের ওপর বেড়েছে শিক্ষা ব্যয়।

শিক্ষা উপকরণের দাম হঠাৎ এভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা ডলারের দামের অস্বাভাবিক বৃদ্ধিকে দেখিয়েছেন। বাংলাদেশের শিক্ষা উপকরণের ৮০ শতাংশই বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। বিশ্ববাজারে কোনো দ্রব্যের দাম স্থিতিশীল থাকলেও আমদানির ক্ষেত্রে মুদ্রার মান একটা বড় প্রভাবক। বিশ্ববাজারে এসব শিক্ষা উপকরণের দাম বাড়েনি অথচ সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের দেশে তা বেড়ে গেছে কারণ ডলারের দাম বেড়েছে; আরও সহজভাবে বললে আমাদের টাকার মান ডলারের তুলনায় কমে গেছে।

দেশের মোট চাহিদার ৮০ শতাংশ শিক্ষা উপকরণই দেশের বাইরে থেকে আমদানি করা হচ্ছে। এর মানে আমরা দেশীয়ভাবে মাত্র ২০ শতাংশ শিক্ষা উপকরণের যোগান দিতে পারছি। অথচ বাস্তবতা হচ্ছে, চাইলেই ৮০ শতাংশ শিক্ষা উপকরণ দেশেই উৎপাদন করতে পারি।

এ ছাড়াও নেতৃবৃন্দ শিক্ষা ব্যয় ও নিত্যপণ্যের মূল্য কমাতে সরকারের সুপরিকল্পনা গ্রহণের দাবি জানান।

(Visited ৭ times, ১ visits today)

আরও পড়ুন

কুমিল্লার মেয়র হলেন আরফানুল হক রিফাত
তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হলেন আব্দুল্লাহ হাসান ছোটন
বিএনপিকে আগুন নিয়ে না খেলতে সতর্ক করেছেন : ওবায়দুল কাদের
তারেকের স্ত্রী জোবায়দাকে পলাতক ঘোষণা করেছেন আপিল বিভাগ
বিএনপিকে জনকল্যাণকর রাজনীতির পথে ফিরে আসতে আহ্বান
আলোচিত পি কে হালদার আওয়ামী লীগের কেউ নয়
‘বিএনপি নেতারা চাতক পাখির মতো টেমস নদীর ওপারের নির্দেশের অপেক্ষায় থাকে’
কারামুক্ত যুবলীগের সাবেক সভাপতি সম্রাট