১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

ক্যামেরার পেছনেও কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে: আজম খান

অভিনেতা আজম খান পেশায় একজন ব্যাংকার। কিন্তু শখের বশে অভিনয়ে পা রাখেন। ২০১৫ সালে ‘দ্য হিরো’ নাটকের মাধ্যমে প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান তিনি। অভিনয়ের অভিষেকে সহশিল্পী হিসেবে পেয়েছিলেন শহীদুজ্জামান সেলিমকে। নাটকটি প্রচারের পর আলোচনায় উঠে আসেন তিনি। তারপর থেকে বিজ্ঞাপন, চলচ্চিত্র, ওটিটি প্ল্যাটফর্মের কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কয়েক দিন আগে অভিনয় ক্যারিয়ারের সাত বছর পূর্ণ করেছেন। সমকালীন ব্যস্ততা নানা বিষয় নিয়েই মুখোমুখি হয়েছিলেন আজম খান।

প্রতিবেদক: কয়েক দিন আগে অভিনয় জীবনের সাত বছর পূর্ণ করলেন…
আজম খান: গত ৩ জুলাই অভিনয় জীবনের সাত বছর পূর্ণ হয়েছে। এটি আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই সাত বছরে প্রায় সবগুলো মাধ্যমেই কাজ করার চেষ্টা করেছি। প্রথমে শুরু করেছিলাম নাটক দিয়ে। তারপর বিজ্ঞাপন, মিউজিক ভিডিও, সিনেমা ও ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য কাজ করেছি। বর্তমান সময়ের অধিকাংশ গুণী নির্মাতা-অভিনয়শিল্পীদের সঙ্গে কাজের সুযোগ হয়েছে। সত্তর, আশি, নব্বই ও শূন্য দশকের অভিনয়শিল্পীদের সঙ্গে সহশিল্পী হিসেবে কাজের সুযোগ হয়েছে। এটি আমার সৌভাগ্য বলেই মনে করি। আজ শর্মিলী আহমেদ মারা গেছেন; উনার সঙ্গেও কাজ করেছি। আমার সহশিল্পীদের তালিকায় দিলারা জামান, মামুনুর রশীদ, আবুল হায়াত, সৈয়দ হাসান ইমাম যেমন রয়েছেন, তেমনি সুবর্ণা মুস্তাফা, আফজাল হোসেন, আফসানা মিমি, তৌকীর আহমেদ, আফরান নিশো, মেহজাবীন, অপূর্বর মতো এ প্রজন্মের শিল্পীরাও রয়েছেন।

প্রতিবেদক: অধিকাংশ ক্ষেত্রে বাবা কিংবা অফিসের বসের চরিত্রে আপনাকে দেখা যায়। পাশাপাশি সমাজসেবক, রাজনীতিবিদ আবার খল চরিত্রেও অভিনয় করেছেন। কিন্তু বাজেট কমে যাওয়ায় গল্প থেকে বাবা-মায়ের চরিত্র কমে যাচ্ছে। বিষয়টি কীভাবে দেখছেন?
আজম খান: বাজেট কমে যাওয়ার কারণে গল্পের চরিত্র কমে যাচ্ছে; অনেক গল্পে বাবা থাকলে মা থাকে না আবার মা থাকলে বাবা থাকে না। আমাদের দেশটি পরিবার প্রধান। আমাদের পারিবারিক বন্ধনটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। টেলিভিশন হচ্ছে একটি ফ্যামিলি মিডিয়া। কোনো পরিবারের গল্প যখন বলবেন সেখানে বাবা-মা, বড় ভাই-বোনের চরিত্র চলে আসে। এসব চরিত্র যখন আসে তখন একটি গল্প পূর্ণতা পায়। আমার মনে হয়, এরকম গল্পের কাজ হওয়া উচিত। এসব চরিত্র গল্পে রাখা জরুরি।

প্রতিবেদক: আপনার কি কোনো কাঙ্ক্ষিত চরিত্র আছে, যাতে আপনি অভিনয় করতে চান?
আজম খান: সত্যি বলতে ওরকম স্বপ্নের চরিত্র এখনো পাইনি। আশা আছে, স্বপ্নের চরিত্রে কাজের সুযোগ পেয়ে যাব। আসলে যে ধরণের চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পাই, সেসব গল্পগুলো আমাদেরকে নিয়ে লেখা হয় না। সাধারণত কেন্দ্রীয় চরিত্রকে কেন্দ্র করে গল্প লেখা হয়। পারিবারিক মূল্যবোধসম্পন্ন কাজ মাঝে কমে গিয়েছিল; আবার তা ফিরে এসেছে। আকাঙ্ক্ষা আছে আমি আমার স্বপ্নের চরিত্র পেয়ে যাব।

প্রতিবেদক: আপনি পেশায় ব্যাংকার। নিয়মিত অভিনয় করছেন। দুটো বিষয় কীভাবে সামলাচ্ছেন?
আজম খান: এটি পুরোটাই টাইম ম্যানেজমেন্ট ও মাল্টি টাস্কিং। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১০ ঘণ্টা অফিসে ব্যয় করার পর ব্যক্তিগত যে সময়টা থাকে ওই সময়টাই অভিনয়ের পেছনে ব্যয় করি। অনেক সময় শুটিংয়ের ক্ষেত্রে বেশি সময় প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে অফিসও আমাকে সহযোগিতা করে। আমি মিউচুয়্যাল ট্রাস্ট ব্যাংকে (হেড অব কমিউনিকেশন্স) কর্মরত আছি। ইচ্ছা, আকাঙ্ক্ষা থাকলে সবকিছু মিলিয়েই কোনো না কোনোভাবে কাজ করা সম্ভব। দুটি দিকেই অনেস্টলি কাজ করার চেষ্টা করি। শখের বশে অভিনয়ে এসেছিলাম, এখন এটি কাজে পরিণত হয়েছে।

প্রতিবেদক: অভিনয় নিয়ে আপনার ভাবনা?
আজম খান: শেষ পর্যন্ত অভিনয়টা করে যেতে চাই। যতদিন পর্যন্ত আমার চাহিদা থাকবে, ততদিন পর্যন্ত অভিনয়টা চালিয়ে যাব। আর ক্যামেরার পেছনেও কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে। তবে সেটা সময় কথা বলবে।

প্রতিবেদক: বর্তমান ব্যস্ততা নিয়ে বলুন…
আজম খান: সম্প্রতি দুটি সিনেমার কাজ শেষ করেছি। এগুলো হলো ‘টুঙ্গীপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’ ও ‘শত্রু’। দুটো সিনেমারই শুটিং শেষ, ডাবিং বাকি আছে। ঈদুল আজহা উপলক্ষে বেশ কিছু নাটক-টেলিফিল্মে কাজ করেছি। আশা করছি, ১৯টি নাটক-টেলিফিল্ম এবারের ঈদে প্রচার হবে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

আরও পড়ুন

নিষিদ্ধ হলো শিয়াদের বির্তকিত ‘লেডি অভ হ্যাভেন’সিনেমা
বসুন্ধরা ডিজিটাল এ নতুন নাটক ‘মিডল ক্লাস লাভ স্টোরি’
চলচ্চিত্রের বিকাশ সমাজকে বিপথগামিতা থেকে রক্ষায় সহায়ক
আলী কুলি মির্জার সাথে এপিরাসের নতুন গান ‘তুরা তুরা’!
স্বামী নাঈমের জন্য দোয়া চাইলেন শাবনাজ
অভিনেত্রী শমী কায়সারকে মানহানির মামলা থেকে অব্যাহতি
দীঘির সিনেমার ট্রেলার নিয়ে সমালোচনা, জবাবে যা বললেন নির্মাতা
ফের প্রেমে পড়েছেন শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়